বিপিয়া টিউটোর - এসো শিখি সহজ করে

বাংলা ভাষায় প্রযুক্তি সহজে উপস্থাপনের নিমিত্তে আমাদের এই ছোট্ট প্রয়াস।

🔍 কি খুঁজছেন!

ক্লাউড কম্পিউটিং সার্ভিস এবং বিভিন্ন স্টোরেজ মেমরি

ন্টারনেট ব্যবহারকারী খুব কম সংখ্যক মানুষই আছে যারা ক্লাউড (Cloud) কম্পিউটিং সার্ভিস সম্পর্কে জানে না । এই ক্লাউড শব্দটির আভিধানিক অর্থ মেঘ । আকাশে বৃষ্টির পূর্বাভাষ হলেই মেঘের একটা ছায়া আমরা লক্ষ্য করি । মেঘের কথা মনে আসলেই ছোট কালে বৃষ্টির প্রাক কালে এদিক ওদিক উন্মুক্ত আনন্দের এক ছুটাছুটির কথা মনে পরে যায় । যায় হোক শৈশবের কথা এখানে আলোচ্য না । আলোচ্য বিষয় ঐ মেঘ । মেঘ বিষয়ে আমরা একটা বিষয় পরিষ্কার যে, মেঘ আকাশে ঝুলন্ত (Hanging) অবস্থায় থেকে এদিক ওদিক ছুটাছুটি করে । তাই ক্লাউড সার্ভিস নামটা শুনেই আমরা ধরে নিতে পারি , এটা এমনি এক ধরণের সেবা হতে পারে যেটা ঝুলন্ত অবস্থায় থাকে অর্থাৎ যেটা অস্পর্শীয় । ঠিক তাই । ইন্টারনেটের এই সেবাটি আপনার ইলেক্ট্রনিক সকল ড্যাটাকে সংরক্ষণ করে । এতো সব আপনার প্রাইভেট সম্পদ রাখা অথচ আপনি তা ধরে ছুঁয়ে দেখতেও পারছেন না । তবে এটাই আপনার সকল ফাইল নিরাপদে রাখার উত্তম পদ্ধতি । কারণ, যদি আপনি কোন গোপনীয় জিনিস আপনার বাড়িতে রাখেন সেটার সর্বশেষ নিরাপত্তা চলে যায় একটি তালার উপর । আর এখন একটি লোহার তালা বা স্টিলের তালা চোরের কাছে কিছুই না । অস্পর্শক ইন্টারনেটে যে চোর কম তা নয় । এই বিশাল সেবা প্ররদানের জন্য ইন্টারনেটের চোর গুলো আরো ভয়ংকর । তবে কম্পিউটারের ভাষায় এই চোর গুলোকে হ্যাকার বলে । ইন্টারনেট ক্লাউড কম্পিউটিং সার্ভিসে আপনার ফাইলগুলো গোপন রাখতে সার্ভিস প্রোভাইডাররা ২৪/৭ নিরাপত্তা গবেষকদের নিয়োজিত রাখে ।

যাতে কোন চোর তাদের সার্ভারে রাখা আপনার সম্পদ নষ্ট করতে না পারে । তারা আপনার ফাইল সংরক্ষণের জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিবে । ইন্টারনেট আইন মেনেই তারা এসব প্রোজেক্ট হাতে নেয় । আর কথা নাবারিয়ে চলে যায় মূল প্রসঙ্গে । যখন আমরা আমাদের প্রয়োজনীয় ফাইল কম্পিউটারের হার্ড ডিক্সে রাখি তখন ফাইল নষ্ট হওয়ার একটা আশংকা থাকে । কারণ, কি জানি কোন কারণে হার্ড ডিক্স ক্রাশ খেয়ে যায় বা কম্পিউটারে সমস্যা হয়ে যায় । তাহলে আমার সকল গুরুত্তপূর্ণ ফাইল শেষ ! ঠিক এর বিপরীতে ইন্টারনেট ক্লাউড সিস্টেম আপনার সকল তথ্য ও উপাত্তকে নিরাপত্তার সহিত বিভিন্ন মেয়াদে তাদের কাছে জমা রাখার প্রতিশ্রুতি দেয় । এখন পর্যন্ত যে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করলাম সেটা ছিলো ইন্টারনেট ক্লাউড কম্পিটিং নিয়ে । এছাড়াও কম্পিউটারে ডিজিটাল ড্যাটা সংরক্ষণের বিভিন্ন পদ্ধতি আছে । যেগুলোকে অফলাইন ফাইল সিস্টেম বলা যায় । অফলাইন ফাইল সিস্টেমকে ঐতিহ্যবাহী (Traditional) বা লোকাল স্টোরেজ সিস্টেম (Local Storage System)ও বলা হয় । তাহলে দেখে নিই ইন্টারনেট বিহীন ফাইল সিস্টেমে কি কি সেবা রয়েছে ।

i). এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ (External Hard Drive)


এই সেবাটি একটি ঐটিহ্যবাহী পদ্ধতি । যা আপনার কম্পিউটারে ইন্সটল ফাইলগুলোকে যেকোন সময় ইন্টারনেট বিহীন ভাবে দেখা, লেখা এবং স্বতন্ত্র প্রবেশের সুযোগ দেয় । এটা যেকোন একটি কম্পিউটারে প্রাথমিক ভাবেই সংযুক্ত থাকে । এটা স্থানান্তর করতে হলে আপনাকে কম্পিউটারের আবরণ খুলে সেখান থেকে অপসারণ করতে হবে । তাই এটি একটু কষ্ট সাধ্য । এই পদ্ধতিতে আপনি কোন অপারেটিং সিস্টেমকে কম্পিউটার ফাইল ম্যানেজিং এর জন্য ব্যবহার করতে পারবেন । তবে এটি নষ্ট হওয়ার আশংকা থাকে । এটি সর্বোচ্চ ৩ ট্যারাবাইট ড্যাটা স্টোর করতে পারে ।
এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ দুই ধরণের আছে । একটি হল, ডেক্সটপ হার্ড ড্রাইভ (Desktop External Hard drive ) এবং অন্যটি পোর্টেবল হার্ড ড্রাইভ (Portable External Hard drive) ।
ডেক্সটপ হার্ড ড্রাইভ গুলো ডেক্সটপ কম্পিউটারের জন্য ব্যবহার করা হয় । যা পরিবহণ অনেক কষ্ট সাধ্য । এগুলো আকারে ৩.৫ ইঞ্চি দীর্ঘ হয় । আর পোর্টেবল হার্ড ড্রাইভ গুলো প্রধানত ল্যাপটপের জন্য ব্যবহার করা হয় । এগুলো আকারে ২.৫ ইঞ্চি দীর্ঘ হয়ে থাকে । এটার প্রধান সুবিধা হচ্ছে এটি সহজে পরিবহণযোগ্য । ডেক্সটপের হার্ড ডিক্সগুলো ল্যাপটপের হার্ড ডিক্স থেকে সস্তায় পাওয়া যায় এবং তা ল্যাপটপের হার্ড ডিক্সের চাইতে তার সক্রিয়তা বেশি ।

ii). সলিড স্টেট ড্রাইভ (Solid State Drive) (SSD)

এই ড্রাইভ ম্যাগনেটিক ফিল্ডের মাধ্যমে অফলাইনে আপনার সম্পূর্ণ সিস্টেম এবং ফাইল সিস্টেমকে সংরক্ষণ করে । এটি সহজেই স্থান পরিবর্তন করা যায় । এটির স্থায়িত্ব ও প্রবেশ সুবিধা দ্রুতই । কিন্তু এর মূল্য অন্যান্যদের তুলনায় বেশি । এটি ৬৪ গিগাবাইট থেকে ২৫৬ গিগাবাইট ড্যাটা সংরক্ষণ করতে পারে ।

iii). নেটওয়ার্ক এটাচ্‌জড্‌ স্টোরেজ (Network Attached Storage) (NAS)

সকল ব্যবহারকারীরা একটি ফাইল স্টোরেজের সাথে সংযুক্ত থাকে । যেমন, আপনার পরিবারে একটি ফাইল হোস্টার থাকবে । যেটার মাধ্যমে আপনার পরিবারের সকল কম্পিউটার কানেক্ট থাকবে । অর্থাৎ, একটি হার্ড ডিক্সের মাধ্যমে অনেকগুলো কম্পিউটার এটাচ্জ‌ড্‌ থাকবে । এটার নিরাপত্তা ভালো এবং ফাইল শেয়ারিং ক্ষমতা উন্নত । এই ড্রাইভের মেশিন অনেক গরম হয়ে যায় । তাই এর জন্য ফ্যান ব্যবহার করা হয় ।

iv).ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ (USB Pen Drive Or Flash Drive)

ইউনিভার্সাল সিরিয়াল বাস (Universal Serial Bus) কে সংক্ষেপে ইউএসবি বলা হয় । কম্পিউটারে ইউএসবি পোর্টের মাধ্যমে যে সকল ড্রাইভ ফাইল স্টোরেজের জন্য ব্যবহার করা হয় তাদেরকে ফ্ল্যাশ ড্রাইভ বলা হয় । সবগুলোর চাইতে এই ড্রাইভের পরিবহণ ক্ষমতা সহজ । সাধারণত, একটি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ ৪ থেকে ৬৪ গিগাবাইট ড্যাটা স্টোর করতে পারে । তবে নষ্ট হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে ।

v). অপটিক্যাল ডিক্স ড্রাইভ (Optical Disk Drive) (CD/ DVD)


একটি অপটিক্যাল ড্রাইভ মানে দ্রুত ও স্বল্প মূল্যে ফাইল স্টোর সুবিধা সম্পন্ন ড্রাইভ । যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কারো কাছে ফাইল আদান প্রদানের স্বার্থে ব্যবহার করা হয় । এই ড্রাইভে ফাইল নিরাপত্তাহীন । যার হাতে থাকে সেই ঐ ফাইলগুলোকে সহজেই এক্সেস নিতে পারে । এই ড্রাইভকে বলা যায় প্রায় স্বল্প সময়ের জন্য ফাইল রক্ষা করতে পারে । কারণ, এটি ভঙ্গুর অর্থাৎ, একটু আঘাত পেলেই ভেঙে যেতে পারে । একটি সিডি তে সাধারণত ৬৫০ থেকে ৯০০ মেগাবাইট ফাইল রাখা যায় এবং ডিভিডি তে সাধারণত ৪.৭ থেকে ১৭.০৮ গিগাবাইট ফাইল স্টোর করা যায় ।



আজকের লেখাটি আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে । যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই নিচের কমেন্ট বক্সে আপনার মন্তব্য জানাবেন এবং মুক্ত ভাবে শেয়ার করে অন্যদের জানাতে পারেন । আপনাদের সহজে বুঝানোর চেষ্টায় আমাদের প্রধান উদ্দ্যেশ্য । ধন্যবাদ সবাইকে ...। 



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন